1. 24sirajganj@gmail.com : Md Masud Reza : Md Masud Reza
  2. admin@dailysirajganjnews.com : unikbd :
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০২:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
সিরাজগঞ্জে খামারিদের মাঝে গো-খাদ্য বিতরণ করলেন -এমপি   হাবিবে মিল্লাত মুন্না  সিরাজগঞ্জে নগর দরিদ্র সু-রক্ষা ফোরামের ত্রৈ-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত তাড়াশে ট্রাকের ধাক্কায় কৃষি শ্রমিকের মৃত্যু তাড়াশে বৈদ্যুতিক সকে মাসুদ রানা নামের এক ইলেকট্রিশিয়ানের মৃত্যু ছোনগাছায় ইউপি সদস্য জহুরুল ইসলামের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত সিরাজগঞ্জে পুলিশ ও কোটা সংস্কারকারীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, পুলিশসহ আহত ১০, আটক ৮ সিরাজগঞ্জে পবিত্র আশুরা ১৪৪৬ হিজরি উদযাপন উপলক্ষে আশুরার গুরুত্ব ও তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  সলঙ্গার সাহেবগঞ্জে নিষিদ্ধ বাংলাড্রেজার জব্দ চরগিরিশ ইউনিয়নে বন্যাকালীন চরাঞ্চলে ফসল উৎপাদন কৌশল ও সংরক্ষণ বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত  কাজিপুরে এনডিপির উদ্যোগে চরগিরিশ ইউনিয়নে সাইলো ও গো খাদ্য বিতরণ  তাড়াশে রাস্তার পাশে ফেলে গেল কাপড়ে মোড়ানো নবজাতকের মরদেহ তাড়াশে শিশু শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করতে নানা রং ও বর্ণে সজ্জিত হচ্ছে বিদ্যালয়

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের ২০২৩ সালের মানবাধিকার প্রতিবেদন ঢাকার প্রত্যাখ্যান

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৪ Time View

 ঢাকা : সম্প্রতি মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের প্রকাশিত ২০২৩ সালের মানবাধিকার প্রতিবেদনের সমালোচনা করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র আজ বলেছেন, এটি স্পষ্ট যে প্রতিবেদনটি বেশিরভাগ অনুমান এবং অপ্রমাণিত অভিযোগের উপর নির্ভর করে প্রনয়ণ করা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মুখপাত্র সেহেলি সাবরিন বলেন, “যেমন, রিপোর্টিং প্যাটার্নে কিছু অন্তর্নিহিত এবং চোখে পড়ার মত পক্ষপাতিত্ব বেশ স্পষ্ট।”তিনি বলেন, অভিযোগগুলো স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা (বেনামী উৎসসহ) থেকে নেওয়া হয়েছে যার মধ্যে অনেকগুলো মার্কিন সরকার বা সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর সাহায্যপুষ্ট।তিনি আক্ষেপ করে বলেন, প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সরকারের অনেক উন্নয়ন ও অর্জনের স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। অন্যদিকে নিয়মতান্ত্রিক প্রবণতার অংশ হিসেবে বিচ্ছিন্ন ও ভিত্তিহীন অভিযোগ অব্যাহত রয়েছে।তিনি আরও বলেন, প্রতিবেদনটি থেকে এটি স্পষ্ট হবে যে বিস্তৃত, সাধারণীকৃত সিদ্ধান্ত প্রতিষ্ঠার জন্য নির্দিষ্ট প্রকৃত বা দাবিকৃত দৃষ্টান্তগুলোর অসংখ্য রেফারেন্স ব্যবহার করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ সরকার যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের ‘কান্ট্রি রিপোর্ট অন হিউম্যান রাইটস প্র্যাকটিসেস, ২০২৩’ প্রকাশের বিষয়টি নোট করেছে এবং বিশ্বজুড়ে মানবাধিকার পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রশাসনের অব্যাহত আগ্রহের প্রশংসা করেছে।সেহেলি বলেন, ‘আমরা যতই আশা করি না কেন, বিশ্বের কোথাও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিখুঁত নয়। যদিও মানবাধিকার হিসেবের বাইরে নয়, তবে তাদের পরিপূর্ণতা ক্রমবর্ধমান হতে পাওে, কারণ, আর্থ-সামাজিক সীমাবদ্ধতা প্রায়শই এই অধিকারগুলো উপলব্ধির গতিকে সীমাবদ্ধ করে দেয়।বাংলাদেশ সরকার তার নাগরিকদের মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে।তিনি বলেন, যেসব ক্ষেত্রে আরও উন্নতির প্রয়োজন রয়েছে, বর্তমান সরকার ২০০৯ সাল থেকে টানা দায়িত্বে থাকাকালীন, মানবাধিকার পরিস্থিতির অর্থপূর্ণ অগ্রগতি অনুধাবনে গুরুত্ব অব্যাহত রেখেছে।মুখপাত্র বলেন, যে কোনও বিচক্ষণ পর্যবেক্ষক লক্ষ্য করবেন যে এই জাতীয় প্রচেষ্টার ফলে নারীর ক্ষমতায়ন, লিঙ্গ সমতা, শিশুদের অধিকার, প্রবীণ ব্যক্তিদের অধিকার, শ্রমিকদের অধিকার, অভিযোগ নিষ্পত্তি, ন্যায়বিচার প্রাপ্তি, ধর্মীয় স্বাধীনতা, বাক স্বাধীনতা, সংগঠন করার স্বাধীনতা, সমাবেশের স্বাধীনতা এবং আরও অনেক কিছুতে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতিবেদনে যা দাবি করা হয়েছে তার বিপরীতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া নির্বাহী ক্ষমতার অধীনে স্থগিত একজন সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তি এবং নিশ্চিতভাবেই তিনি কোনো ধরনের ‘গৃহবন্দি’ নন।তিনি বলেন, প্রতিবেদনের চরম অনুপস্থিত উপাদানগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে- গত বছর দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে বিভিন্ন অজুহাতে এবং বিভিন্ন স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীকে ব্যবহার করে অস্থিরতা, সহিংসতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টির লক্ষ্যে রাষ্ট্রবিরোধী ও সরকারবিরোধীরা যে পদ্ধতিগত প্রচারণা।প্রতিবেদনে কিছু ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে মাত্রাতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগের অভিযোগ করা হলেও এটি বিএনপি ও তার রাজনৈতিক মিত্রদের সহিংসতা ও ভাঙচুরের প্রতিফলন ঘটাতে ব্যর্থ হয়েছে, যা প্রায়শই সাধারণ মানুষের জীবনকে বিপর্যস্ত করে এবং এর ফলে সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তির ক্ষতি হয়।

তিনি বলেন, এটি নিন্দনীয় যে রাষ্ট্র যখন এই ধরনের অর্কেস্ট্রেটেড প্রচারণার বিরুদ্ধে জনজীবন, শৃঙ্খলা এবং সম্পত্তি রক্ষায় নিয়োজিত ছিল, তখন কিছু আইনানুগ পদক্ষেপ এবং প্রতিকারের আশ্রয় নেওয়ার জন্য প্রতিবেদনে এটিকে দায়ী করা হয়েছে।এটি অবশ্যই নিবন্ধিত হতে হবে যে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো অত্যন্ত সংযম ব্যবহার করেছে এবং যে কোনও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পূর্ণ পেশাদারিত্বের সঙ্গে মোকাবেলা করেছে।তিনি উল্লেখ করেন যে সরকারের আন্তরিক সমর্থন এবং নির্বাচন কমিশনের দ্বারা নির্বাচনের পেশাদার আচরণের সঙ্গে মিলিত, ৪৪টি নিবন্ধিত দলের মধ্যে ২৮টি ১২তম জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল, ৪২ শতাংশ মানুষ বিএনপি এবং কিছু অন্যান্য দলের বর্জন সত্ত্বেও তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছে।এটা দুর্ভাগ্যজনক যে মানবাধিকার এবং শ্রম অধিকার সংক্রান্ত বিষয়ে মার্কিন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একের পর এক সংলাপ হওয়া সত্ত্বেও প্রতিবেদনে এই বিষয়ে রাষ্ট্র বা সরকারের দৃষ্টিভঙ্গিকে ছাড় দেওয়ার জন্য বেশ কিছু অভিযোগ বারবার তুলে ধরা হয়েছে।উদাহরণস্বরূপ, রোহিঙ্গা জনগণকে ‘শরণার্থী’ বা ‘রাষ্ট্রহীন ব্যক্তি’ হিসাবে আখ্যায়িত করা অব্যাহত রয়েছে, যা তাদের মিয়ানমারের নাগরিক বা বাসিন্দা হিসাবে স্বীকৃত হওয়ার বৈধ দাবিগুলিকে খর্ব করে।অন্য একটি উদাহরণে, দেশের সাংবিধানিক বিধানের বিপরীতে কিছু জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠীকে ‘আদিবাসী জনগণ’ হিসাবে চিহ্নিত করা অব্যাহত রয়েছে, যা প্রায়শই অযৌক্তিক উত্তেজনা এবং বিভাজন উসকে দেওয়ার প্রচেষ্টার সমান।আবার, কিছু কিছু ক্ষেত্রে, প্রতিবেদনটি পৃথক মামলায় মার্কিন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ভাগ করা মৌলিক প্রমাণ বা তথ্য বাদ বা অবহেলা করে।উদাহরণস্বরূপ, শাহীন মিয়া এবং মোহাম্মদ রাজুর কথিত হত্যাকান্ডে বিচারিক কার্যক্রমের তথ্য শেয়ার করা হয়েছিল যে ঘটনাগুলো আইনের আওতার মধ্যে ছিল।তারপরও তিনি বলেন, জেসমিন সুলতানার মামলায় যে বিচারিক প্রক্রিয়া গৃহীত হয়েছিল, তা প্রতিবেদনে পর্যাপ্তভাবে প্রতিফলিত হয়নি, বিশেষ করে চলমান যথাযথ প্রক্রিয়ার বিষয়টি।অনুরূপভাবে শ্রম অধিকার সংক্রান্ত সমস্যাগুলোর বিষয়ে প্রতিবেদনে বেশ কয়েকটি ঘটনা উল্লেখ করা হয়েছে, বিশেষ করে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন এবং কার্যকলাপের বিষয়ে, যেগুলো একাধিক দ্বিপাক্ষিক বা বহুপাক্ষিক প্ল্যাটফর্মে প্রাসঙ্গিক মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে।যথারীতি, প্রতিবেদনে কারখানা, স্থাপনা, পাবলিক প্রপার্টি বা ব্যবস্থাপনা কর্মীদের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের নামে অযাচিত বাধা বা ভাঙচুরের ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক গৃহীত আইনানুগ পদক্ষেপগুলোকে ভুলভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে।মুখপাত্র বলেন, প্রতিকার ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য গৃহীত পরবর্তী প্রশাসনিক ও বিচারিক পদক্ষেপগুলো প্রায়শই বিশদ না করে মানবাধিকারের পদ্ধতিগত অপব্যবহারের অংশ হিসাবে বেসরকারি ব্যক্তি বা সত্তা দ্বারা সংঘটিত ঘটনাগুলো তুলে ধরার প্রবণতা বজায় রেখেছে।এই প্রতিবেদন স্বাধীন বিচার বিভাগ এবং কিছু সংবিধিবদ্ধ সংস্থাসহ বেশ কয়েকটি মূল্যবান রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে মূল্যায়ন করতে ব্যর্থ হয়েছে এবং বরং খাটো করেছে, যা এই জাতীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর মনোবল এবং কার্যকারিতার জন্য ক্ষতিকারক।সাধারণভাবে, বাংলাদেশ সরকার সামগ্রিক প্রতিবেদনটি আমলে নেয় এবং যে কোনও পরিস্থিতিতে সকল নাগরিকের মানবাধিকারের পূর্ণ উপভোগ নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি সমুন্নত রাখতে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রক্রিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য আন্তর্জাতিক অংশীদার এবং অংশিজনদের সঙ্গে জড়িত থাকার প্রত্যাশায় রয়েছে।বাংলাদেশ সরকার এই সুযোগে ইসরাইলি দখলদার বাহিনী কর্তৃক গাজায় অব্যাহতভাবে মানবাধিকার পদদলিত করার বিষয়ে তার উদ্বেগ পুনর্ব্যক্ত করেছে এবং আশা করে যে ফিলিস্তিনে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘন, নিরপরাধ নারী ও শিশুদের হত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চলমান প্রচেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্র  নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
  • © All rights reserved © 2023 Daily Sirajganj News
Website Developed by UNIK BD
x