1. 24sirajganj@gmail.com : Md Masud Reza : Md Masud Reza
  2. admin@dailysirajganjnews.com : unikbd :
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
সিরাজগঞ্জে খামারিদের মাঝে গো-খাদ্য বিতরণ করলেন -এমপি   হাবিবে মিল্লাত মুন্না  সিরাজগঞ্জে নগর দরিদ্র সু-রক্ষা ফোরামের ত্রৈ-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইলে ট্রেন বিকল, ঢাকার সাথে সিরাজগঞ্জের রেল যোগাযোগ বি‌চ্ছিন্ন কামারখন্দে মায়ের স্বপ্ন পূরনে মাকে নিয়ে হেলিকপ্টারে বাড়ী ফিরলেন মালয়েশিয়া প্রবাসী তোতা আসন্ন পবিত্র রমজানে সরকারিভাবে বড় ইফতার পার্টি না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে : সংসদে প্রধানমন্ত্রী সিরাজগঞ্জে এলজিইডি’র চলমান কাজ বাতিল করে এবার পুন:দরপত্র করার অভিযোগ এনায়েতপুরে মেয়েকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় হামলার শিকার বাবা, আটক-৪ উল্লাপাড়ায় ইট ভাটা ও হাইওয়ে রেষ্টুরেন্টকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা সিরাজগঞ্জে আন্দোলনে দৃষ্টি হারানোসহ ক্ষতিগ্রস্থ বিএনপি নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়ালেন সাইদুর রহমান বাচ্চু সিরাজগঞ্জে ইআরসিসিপি প্রকল্পের উপকার ভোগীদের আয়বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রমের আর্থিক সহায়তা প্রদান সিরাজগঞ্জে কেন্দ্রীয় মন্দির মহা প্রভূর আখড়া’র কমিটি গঠন, সভাপতি প্রদীপ,সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ কুমার কানু

ছাত্রনেতা থেকে জননেতা ও জননন্দিত জনপ্রতিনিধি- অধ্যাপক ডা: আব্দুল আজিজ এমপি

  • Update Time : শনিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৯৫ Time View

  

 অধ্যক্ষ মোঃ শরীফুল ইসলাম:

একজন প্রকৃত নেতা তিনিই যিনি চোখের দিকে তাকালেই কর্মীর মনের ভাষা বুঝতে পারেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলের একজন কর্মীর নামও স্মরণ রাখতে পারেন-তেমনি বহু মানবিক গুণে গুণান্বিত অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ এমপি।

সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ) নির্বাচনী এলাকাবাসীর সৌভাগ্য তার মতো একজন নেতাকে পেয়েছেন যিনি ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় যেমন দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বসাধারণের বিপদে-সংকটে পাশে দাঁড়াচ্ছেন, তেমনি ক্ষমতার বাহিরে থেকেও সমভাবে নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের পাশে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন।

একজন প্রভাবশালী সংসদ সদস্য ও উন্নয়নবান্ধব কর্মব্যস্ত মানুষ হয়েও সিরাজগঞ্জ-৩ নির্বাচনী এলাকার নেতাকর্মীদের সর্বোচ্চ সময় দেন, তাদের কথা মনোযোগ সহকারে শোনেন এবং আন্তরিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করেন। হাজারো ব্যস্ততার মাঝেও যেকোন ফোনই তিনি রিসিভ করেন, সময় নিয়ে কথা বলেন। এজন্যই তিনি আজ রায়গঞ্জ-তাড়াশের অপ্রতিদ্বন্দ্বি নেতায় পরিণত হয়েছেন।

অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ রায়গঞ্জ-তাড়াশের গর্ব, সিরাজগঞ্জ-৩ নির্বাচনী এলাকার অহংকার, সত্যিকারের উন্নয়নের রূপকার এবং সফল উন্নয়ন বাস্তবায়নকারি। তিনি ছিলেন ছাত্রনেতা, হয়েছেন জননেতা ও জননন্দিত জনপ্রতিনিধি। তাঁর এই সফলতা ও অর্জন একদিনে আসেনি। এ অবস্থায় আসতে তাকে নানাঘাত-প্রতিঘাত ও চড়াই উৎরাই পার করতে হয়েছে।

তখন ১৯৮১ সাল। দেশের চারদিকেই যেন বিরাজ করছিল এক আতঙ্ক। ১৯৮১ সালের মে মাসের এক গভীর রাতে জেনারেল জিয়ার হত্যাকাণ্ডের পর বিচারপতি আবদুস সাত্তার সাংবিধানিক পথে নির্বাচনের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। দেশের সামাজিক-রাজনৈতিক পরিস্থিতি তখন ভালো ছিল না। জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ থেকে ক্ষমতা সংহত করার প্রক্রিয়ায় রাজনীতিতে সৌখিন উচ্চাভিলাষী নেতা ও বেপরোয়া উচ্চাভিলাষী কর্মীদের সম্পৃক্ত করতে শুরু করেন। ক্ষমতার রাজনীতির একটি স্বতন্ত্র স্বার্থ সর্বস্ব চতুর ধূর্ত রূপ দাঁড়াতে থাকে। এর যূপকাষ্ঠে আদর্শ বা নীতি ক্রমাগত বলি হয়েছে। তবে জিয়ার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রসমাজের আন্দোলনে গণতান্ত্রিক আদর্শের বীজ তখনো ছিল।

অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ তখন (১৯৮১ সালে) রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্রথমবর্ষের ছাত্র আরএমসি-২৩ (অনেকেই তখন পলিন ব্যাচ বলতো) তখনই তিনি যোগ দেন স্বৈরাশাসন বিরোধী আন্দোলনে। তিনি তখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্রচার সম্পাদক (বাংলাদেশ ছাত্রলীগ) এবং পরবর্তীতে তিনি ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন। তখনকার দিনে আজকের মতো ফেসবুক, টুইটার বা এতো বেশি শো-অফ ছিল না, তাই বলে তাঁদের অবদান ইতিহাস থেকে মুছে ফেলা যাবে না। ছাত্র রাজনীতি করতে গিয়ে আব্দুল আজিজ বিভিন্ন মামলা, হামলা ও প্রহসনের শিকার হয়েছেন। তাঁকে হোস্টেল ছাড়তে বাধ্য করা হয়। জীবনযাপন করতে হতো অনেক সংগ্রাম করে। তবুও তিনি পিছুপা হননি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতি তিনি ছিলেন অবিচল।

৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ৬২ এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬ এর ছয় দফা, ৬৯ এর গণঅভ্যুথান ৭০ এর নির্বাচন ও ৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধে দেশ প্রেমীদের সাথে হাজারও ডাক্তার নিজের জীবন বিলিয়ে দিছেন। বর্তমান সময়ে তেমনি একজন মানবিকযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ। তিনিও বিগত সময়ে বিএনপি জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনে গুরুতর আহত আওয়ামীলীগের তৃণমূলের কর্মীদের সু-চিকিৎসা দিয়ে নজির স্থাপন করে নিজেকে একজন দেশপ্রেমী রাজনীতিবিদ ও একজন সমাজসেবকের কাতারে নিয়ে এসেছেন।

সিরাজগঞ্জের গর্বিত কৃতি সন্তান অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একজন বিশ্বস্ত ভ্যানগার্ড। তাঁর এই সাফল্য, তাঁর এই কৃতিত্ব এক দিনের নয়। তিনি একজন পরীক্ষিত বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক।

আব্দুল আজিজ সিরাজগঞ্জের জেলার তাড়াশ উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের মাকরশোন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। আব্দুল আজিজ এমবিবিএস পাশ করে ঢাকা শিশু হাসপাতালের অধ্যাপক, শিশু ইউরোলজী বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, পরিচালক ও প্রখ্যাত শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ পদে আত্মনিয়োগ করেন। চিকিৎসা পেশায় ঢাকা শিশু হাসপাতাল ম্যানেজমেন্ট বোর্ডের সদস্য সচিবের পাশাপাশি তিনি পেশাজীবি সংগঠন বাংলাদেশ স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরি সদস্য ও ঢাকা শিশু হাসপাতালের সভাপতিসহ বিভিন্ন পদ দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার কার্যকরী সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তাড়াশ উপজেলা শাখার উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ ছাত্র অবস্থায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ শাখার যুগ্ম-আহবায়ক ও পরবর্তীতে প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের কার্যকরী সদস্য, বাংলাদেশ বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল প্রাকটিশনারস এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি, এসোসিয়েশন অব প্রেডিয়েটিকস সার্জন অব বাংলাদেশ’র সভাপতি, বাংলাদেশ শিশু চিকিৎসক সমিতির কার্যকরী সদস্য, ফেডারেল অব দি এসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্রিক সার্জন অব সার্ক কান্ট্রিসের কার্যকরী সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক থাকাকালীন সময়ে অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আব্দুল আজিজ প্রতিদিন সারাদেশ থেকে শিশু হাসপাতালে আগত জাতীয় নেতৃবৃন্দসহ এমপি-মন্ত্রীর পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীসহ প্রশাসনিক অফিসারদের পাঠানো রোগীদের সেবা প্রদান করতেন। এছাড়াও হাসপাতালের আগত অসহায় রোগীসহ প্রতি সপ্তাহে নিজ এলাকার গরিব অসহায় রোগীসহ সবধরনের রোগীদের স্বল্পমূল্যে ও বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান করেন। এমনকি নিজ এলাকার উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে সহায়তা প্রদান ও সকল দলীয় নেতাকর্মীদের বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রামেও নেতাকর্মীদের সাহস-অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন এবং আগুনে জ্বলসে যাওয়া কিংবা সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ও শারীরিক অসুস্থ্য নেতাকর্মীদের সাধ্যমত সহায়তা ও চিকিৎসা প্রদানের পাশাপাশি এলাকার গরিব মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষার জন্যে আর্থিক সহযোগিতা করেন থাকেন। শুধু তাই নয়, দেশের যেকোন দুর্যোগের সময়ে জীবনের ঝুকি নিয়ে ঝাপিয়ে পড়েছেন মানবিক ও গরীবের চিকিৎসক হিসেবে খ্যাতি লাভ করা অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আব্দুল আজিজ। ফলশ্রুতি হিসেবে ২০১৪ সালে রানাপ্লাজায় আহত রোগীদের উদ্ধার কাজ ও চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন।

চিকিৎসা পেশা ও বিভিন্ন সংগঠনের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আব্দুল আজিজ জন্মভূমি রায়গঞ্জ-তাড়াশে উন্নয়নে সবসময় নিবেদিত ছিলেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীসহ অসহায় মানুষের পাশে সবসময়ই ছিলেন। তিনি নির্বাচনী এলাকা তাড়াশ-রায়গঞ্জ ও সলঙ্গার জনগণের কাছে একজন সাদা-মনের মানুষ হিসেবেই জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ছিলেন। এজন্যই ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজকে নৌকার মনোনয়ন দেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি মনোনয়ন দেয়ার পর ভোটের মাঠে নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করেন আব্দুল আজিজ। এরপর থেকে শুরু করেন নির্বাচনি এলাকার উন্নয়নের ক্যারিশমা। তার হাত ধরেই তাড়াশ-রায়গঞ্জ-সলংগায় উন্নয়নের চাকা সচল হয় পূর্ণরূপে। পুরো নির্বাচনি এলাকার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্টের একের পর এক উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। ভাঙা রাস্তা সংস্কার, ইটের সলিং, কাঁচারাস্তা পাকাকরণসহ মানুষের ভোগান্তি কমাতে নতুন রাস্তাও তৈরি করছেন তিনি। এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগসহ সকল ক্ষেত্রে একের পর এক উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন সফলভাবে।

উন্নয়ন কার্যক্রমের পাশাপাশি নিজ নেতৃত্বগুণে অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ এমপি বৈশ্বিক মহামারি করোনা মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেক লীগ, কৃষক লীগসহ সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের জনসেবায় ঐক্যবদ্ধ করেছেন। অসহায়, দরিদ্র, শ্রমজীবী ও করোনায় কর্মহীন মানুষের তালিকা তৈরি করে দিয়েছেন আর্থিক সহায়তা ও ত্রাণসামগ্রী। করোনায় আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা ব্যবস্থা ও আক্রান্তের বাসায় পৌঁছে দিয়েছেন পুষ্টিকর খাবার। এছাড়া দীর্ঘ এক মাস নির্বাচনি এলাকাজুড়ে চালু করেছিলেন রান্না করা খাদ্যসামগ্রী বিতরণের কার্যক্রম। দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে পৌঁছে দিয়েছেন এসব রান্না করা খাবার। করোনার সংক্রমণরোধে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জনসচেতনতা সৃষ্টি, লিফলেট ও সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

এলাকার উন্নয়ন ও রাজনৈতিক কর্মসূচি বাস্তবায়নের পাশাপাশি নিজ বাসায় মিনি হাসপাতাল তৈরি করেছেন অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ এমপি। নির্বাচনি এলাকায় অবস্থানকালে সাধারণ মানুষকে ফ্রি চিকিৎসাসেবা দেন নিজ উদ্যোগে। সকালে রাজনৈতিক কর্মসূচির আগে এবং কর্মসূচির পর গভীর রাত পর্যন্ত রোগী দেখেন নিয়মিত। শুধু নিজ বাসায় নয়, দৈনন্দিন কর্মসূচিতে গিয়েও রোগী দেখার নজির রয়েছে এমপি আজিজের। রোগীদের উন্নত চিকিৎসাসেবার প্রয়োজন হলে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালের কথা বলে নিজেই ব্যবস্থা করে দেন। নিজ এলাকার উন্নয়ন ও সৃষ্ট সমস্যার সমাধানে এমপি আজিজের সাথে কথা বলা যায় খুব সহজেই। এমন সাংসদ ও উন্নয়নমুখী মানুষ পাওয়া ভাগ্যের।

তাড়াশ-রায়গঞ্জ ও সলংগা আওয়ামী লীগকে সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী করতে সফল স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ। তিনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার আগে সবগুলোর মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি দিয়ে নির্বাচনী এলাকার সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছিল। এরই মধ্যে নিজ উদ্যোগে তাড়াশ ও রায়গঞ্জ উপজেলা ও সলঙ্গা আওয়ামী লীগের সম্মেলন সুষ্ঠুভাবে শেষ করেছেন তিনি। ওই সম্মেলনে প্রতিটি কাউন্সিলর নিজ নিজ ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব উপহার দিয়েছেন। কাউন্সিলরের ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে এই দুই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে নতুন নেতৃত্ব উঠে এসেছে। বিশেষ করে নির্বাচনী এলাকার অভ্যন্তরীণ কোন্দল, রেষারেষি, ভাই লীগ, এমপি লীগে বন্দি ছিলো তাড়াশ-রায়গঞ্জ ও সলংগা আওয়ামী লীগের রাজনীতি। নিজ উদ্যোগে সৃষ্ট ওইসব সমস্যার সমাধান করেছেন অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ এমপি। কঠোর পরিশ্রম, মেধা ও সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়নে একের পর এক উন্নয়ন করছেন সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের এমপি অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ। দূরদর্শী নেতৃত্বে অন্যায়, অনিয়ম, দুর্নীতি, চাঁদাবাজ ও টেন্ডারবাজ দূর করেছেন আওয়ামী লীগ থেকে। মাঠের রাজনীতি কিংবা জনসেবায় সফল অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ।

জাতির পিতার আদর্শ এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে আমাদের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা লড়াই-সংগ্রাম ও মানুষের আস্থা অর্জন করে আওয়ামী লীগকে জনমানুষের সংগঠনে পরিণত করেছে উল্লেখ করে অধ্যাপক ডাঃ মোঃ আব্দুল আজিজ এমপি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, আমাদের নেতা-কর্মীদের মেধা, পরিশ্রম, ত্যাগ ও দক্ষতায় আওয়ামী লীগ আরো গতিশীল ও শক্তিশালী হবে এবং জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত ও সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে।

এমপি আব্দুল আজিজ আরও বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী এবং উন্নয়ন ও গণতন্ত্র বিরোধী দেশি-বিদেশি অপশক্তি এখনও নানাভাবে চক্রান্ত ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। এই অপশক্তির যেকোন অপতৎপরতা-ষড়যন্ত্র ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ও গণতন্ত্র রক্ষার জন্য সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ)বাসীকে সর্বদা প্রস্তুত থাকতে তিনি দলের সকলস্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
  • © All rights reserved © 2023 Daily Sirajganj News
Website Developed by UNIK BD